কোটিপতি হতে কোয়েল পাখি পালন[koyel pakhi]

কোটিপতি হতে কোয়েল পাখি পালন[koyel pakhi]

কোটিপতি হতে কোয়েল পাখি পালন [koyel pakhi] কোয়েল পাখি পালন করে কোটিপতি হওয়ার সম্ভাবনা আছে কি?

উত্তর হল হ্যা কারন তার জলজ্যান্ত প্রমাণ টাঙ্গাইলের শামীম আল মামুন। তিনি এই অতি আশ্চর্য্য জিনিস টি করে দেখিয়েছেন।

আসুন জেনে নি  কিভাবে কোয়েল পাখি বাড়িতে পালন করতে পারেন ?

কোয়েল পাখি হল আমাদের দেশের একটি অতি পরিচিত পাখি । বাড়িতে কোয়েল পাখি চাষ করার সুবিধা অনেক রয়েছে কারণ, এই পাখিটি গৃহপালিত পাখির মধ্যে সবচাইতে ছোট প্রজাতির।

 কিন্ত মজার ব্যাপার হল এই পাখিটি আমাদের দেশের পাখি নয় । এর আদি নিবাসস্থল হল জাপান নামক একটি দেশ । এই পাখি খুব সহজেই আপনি চাষ করতে পারেন এবং এই চাষের জন্যে আপনার কারিগরী দক্ষতার কোন প্রয়োজন নেই । 

কোয়েল পাখি পালন করবার জন্য অতিরিক্ত  কোন খরচ হয় না । কোয়েলের ডিম দেখতে অনেক সুন্দর  এবং এর গায়ে ছোট ছোট রঙের ছিটা দেখতে পাওয়া যায় । কোয়েলকে সহজেই পোষ মানানো যায় । বাড়ির সামনে খামার বা স্বল্প জায়গাতেও কোয়েল পালন করা যায় । 

কোয়েল পালনে লাভবান / koyel pakhi palan

অর্থনৈতিক ভাবেও কোয়েল পালন অত্যন্ত লাভজনক । আপনি আপনার বাড়িতে এই কোয়েল পাখির চাষ করে নিজেকে খুব সহজেই অর্থনৈতিক ভাবে স্বচ্ছল এবং স্বাবলম্বী করে তুলতে পারেন।

চলুন জেনে নিই  কিভাবে এই পাখির চাষ খুব সহজেই করা সম্ভব ।

কোয়েল পাখি চাষে কিভাবে খাঁচা বা ঘর তৈরি করবেন । 

কোয়েল পাখির খাঁচা তৈরি :

বাড়িতে কোয়েল পাখি চাষ করবার জন্য  সর্ব প্রথম আপনাকে  উপযুক্ত খাঁচা  বা স্বাস্থ্য সম্মত বাসস্থান তৈরি করতে হবে যাতে করে পাখি যেন সুস্থ থাকে । এক্ষেত্রে বেশ কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারেন । তাঁর মধ্যে ব্যাটারি চালিত খাঁচা পদ্ধতি সব চাইতে সহজ এবং লাভজনক ।

 এছাড়াও বিভিন্ন ধরণের খাঁচা  রয়েছে । যেমন –  ব্রিডার খাঁচা, ব্রডার খাঁচা, বিয়ারিং খাঁচা, লেয়ার খাঁচা ইত্যাদি ।

তবে আপনি যদি অল্প জায়গায়  বেশি সংখ্যক কোয়েল পাখি পালন করতে চান তাহলে আপনাকে আমি অবশ্যই ব্যাটারি চালিত খাঁচা পদ্ধতি ব্যবহার করবার  পরামর্শ দেব।

কোয়েল পাখির জাত বাছাই করা : কোয়েল পালন করবার আগে আপনাকে জানতে হবে কোন প্রজাতির পাখি চাষ লাভজনক  ।

আমাদের দেশে কোয়েল পাখি চাষ করবার মত দুই প্রকার প্রজাতি রয়েছে  । 

যেমন –

  1. লেয়ার কোয়েল এবং 
  2.  ব্রয়লার কোয়েল । 

এগুলোকে আপনি আপনার খুব সহজেই বাড়িতে চাষ করতে পারেন ।

কোয়েল পাখি পালন করার সঠিক সময় :

বাড়িতে কোয়েল পাখি চাষ করতে তেমন কোন  বাঁধাধরা নির্দিষ্ট নিয়ম বা সময়  নেই । আপনি চাইলে  বছরের যে কোন একটি  সময়ে কোয়েল পাখির চাষ করতে পারেন ।

কিভাবে কোয়েল পাখি পালন এবং সঠিক নিয়মে যত্ন নেবেন : 

কোয়েল পাখি পালন করতে অধিক  পরিশ্রম করার দরকার হয় না । তবে  এক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যাতে কোয়েল পাখির বাসাতে  পর্যাপ্ত পরিমাণে আলো  ও বাতাসের সুব্যবস্থা থাকে ।

এছাড়াও কোয়েল পাখির বাসা সর্বদাই পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্নতার দিকে খেঁয়াল রাখতে হবে । একটা কথা সবসময় মাথায় রাখবেন ময়লাযুক্ত ডিম সাধারণত রোগ ও জীবাণুর প্রধান উৎস । 

তাই কোয়েল পাখির বাচ্চা ফুটাতে  সর্বদা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ডিম বসাতে হবে । তবে  বাচ্চা ফুটানোর ডিম কখনও ধোয়া ঠিক নয় ।

কোয়েল পাখি পালন পদ্ধতি (koyel pakhi palan podhoti) :

আপনি বাড়িতে কোয়েল পাখির পালন করতে চাইলে তার জন্যে সঠিক নিয়ম বা পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে । সাধারণত কোয়েল পাখি  প্রথমে পোলট্রিতে বড় হয় কিন্তু আশ্চর্য্যের ব্যাপার হল ডিম ফোটানোর সময় দেখা যায় যে  এরা ডিমে তা দেয় না ।

ফলে কোয়েল পাখির বাচ্চা  ইনকিউবেটরে সাহায্যে ফোটাতে হয় । এই কাজ টি সম্পাদন করতে প্রায় ১৬ থেকে ১৮ দিন পর্যন্ত সময় লাগে । 

বাড়িতে কোয়েল পাখি চাষ করার ক্ষেত্রে যদি আপনি শুধুমাত্র ডিম ফুটাতে চান , তাহলে স্ত্রী কোয়েল পাখি প্রতিপালন অধিক লাভজনক হবে । তবে সবসময় লক্ষ্য রাখবেন যে, কোয়েল পাখি পালনে ব্রুডারের তাপমাত্রা যেন সবসময় সঠিক নিয়মে থাকে । নতুবা  কোয়েল পাখির অনেক বড় ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা হতে পারে ।

কোয়েল পাখি কি কি খাবার খায় ?

কোয়েল পাখির খাবার সাধারণত সহজলভ্য  এবং এর জন্যে আলাদা কোন সুষম খাবারের প্রয়োজন পড়ে না । বর্তমানে বাজারের ব্রয়লার মুরগির খাবার এবং পশুখাদ্য হিসেবে মিশানো খাদ্যই এদের জন্যে সঠিক খাবার । শুধুমাত্র ডিম থেকে বাচ্চা ফুটে বের হবার পর কিছুটা বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হয় ।

 এইসময় কোয়েল পাখির বাচ্চাকে সুষম খাদ্য প্রদান করতে হয় । তবে খেয়াল রাখবেন যে, খাঁচায় যেন যথেষ্ট জল বা পানির  সুব্যবস্থা থাকে । এবং কোয়েল পাখিকে কে দিনে কমপক্ষে  3 বার খাবার দেওয়ার চেষ্টা করবেন ।

কোয়েল পাখি পালন ও চিকিৎসা :

কোয়েল পালনন করবার ক্ষেত্রে  বেশকিছু রোগ ব্যাধি র সম্মুখীন হলেও হতে পারে কিন্তু মাথা ঠান্ডা রেখে তার প্রতিকারের উপায় দেখতে হবে।  

এর মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য  রোগ ব্যাধির মধ্যে আমাশয়, ব্রুডার নিউমোনিয়া রোগটি বেশী দেখা যায়  । এছাড়াও  আবহাওয়া পরিবর্তনের সাথে সাথে বাচ্চা কোয়েলের মৃত্যু হতে পারে, যদি না ব্রুডারে থাকাকালীন অবস্থায় তাপমাত্রা স্বাভাবিক রাখা যায় ৷

 তবে যদি কোন পাখি অসুস্থ  হয়ে পড়ে তাহলে উক্ত পাখিটিকে অবশ্যই যথাশীঘ্রই কোয়েলের খাঁচা থেকে সরিয়ে নিতে হবে । কারন অসুস্থ কোয়েল পাখির সংস্পর্শে থাকলে বাকি সুস্থ কোয়েলও আক্রান্ত হতে পারে ।

কিভাবে কোয়েল পাখি এবং খাচার যত্ন ও পরিচর্যা করবেন ?

কোয়েল পাখি পালনে আপনাকে যথেষ্ট সচেতন থাকতে হবে । এর জন্য খাবার এবং পর্যাপ্ত জল/পানির সুব্যবস্থা তার খাঁচাতেই রাখতে হবে । যে খাঁচাতে কোয়েল পাখি পালন করা হবে সেই খাঁচার জালের ফাকগুলো একটু ঘন ঘন থাকতে হবে । যাতে করে কোয়েলের মুখ বা গলা সেই ফাক দিয়ে বাইরে বেরিয়ে না আসতে পারে । 

এছাড়াও কোয়েল পাখির খাঁচায় যেন ইঁদুর, ছুঁচো, সাপ ইত্যাদি না ঢুকতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে । সর্বোপরি খেয়াল রাখতে হবে কোয়েলের খাঁচায় জল/পানি খাবার বা রাখার পাত্র উল্টে যেন কোয়েলের গা ভিজে না যায় । পাশাপাশি কোয়েলের খাঁচা সর্বদা জীবাণু মুক্ত রাখতে হবে ।

 প্রয়োজনে বাজারের যে সমস্ত উন্নত মানের জীবাণুনাশক পাওয়া যায় সেগুলো ব্যবহার করে খাঁচা  জীবাণুমুক্ত করা যেতে পারে ।

কোয়েল পাখি পালন করে কোটিপতি :

    কোয়েল পাখির পালন করলে অনেক ধরণের সুবিধা রয়েছে তবে কোয়েল পাখি পালন করে কোটিপতি হতে পারবেন কি না সেটা নির্ভর করবে আপনার পরিশ্রম এবং মার্কেটিং এর উপর ।

বাড়িতে কোয়েল পাখির পালন করে একটি ভাল জাতের সুস্থ কোয়েল পাখি থেকে বছরে অন্তত ২৫০ – ৩০০টি ডিম পাওয়া  যেতে পারে ।

যা বেশ আশাব্যঞ্জক । তাছাড়া কোয়েল চাষের ঝুঁকিও কম । মুরগির মতো কোন টিকা দেবার প্রয়োজন হয় না । কোয়েল চাষে বেশী খরচ করতে হয় না । অল্প পরিসর জায়গা নিয়ে অনেকগুলো কোয়েল পাখি পালন করা যায় ।

কোয়েল পাখির ডিম ও মাংসের উপকারিতা :

কোটিপতি হতে কোয়েল পাখি পালন

কোয়েল পাখির মধ্যে অনেক রকমের খাদ্য গুণাগুণ  রয়েছে । কোয়েলের মাংস ও ডিম খুবই সুস্বাদু এবং শরীরের জন্য খুবই উপকারী  । এদের মাংস ও ডিমে পর্যাপ্ত পরিমাণ আমিষ, প্রোটিন ও স্নেহজাতীয় পদার্থ বিদ্যমান ।

মজার ব্যাপার হলো একটি বড় আকারের মুরগির ডিমে যে পরিমাণ প্রোটিন রয়েছে তা একটি ক্ষুদ্র কোয়েলের ডিমেও প্রায় সেই পরিমাণ প্রোটিন আছে ।

আরও পড়ুন সহজ রসগোল্লা রেসিপি

Leave a Reply